নোটিশ বোর্ড

কাজী নজরুল ইসলামের জন্মবার্ষিকীতে নজরুলগীতির সকল শুভানুধ্যায়ীকে জানাচ্ছি প্রাণঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।

গান শুনুন

Print

জগতের নাথ তুমি তুমি প্রভু প্রেমময়

বাণী

জগতের নাথ তুমি, তুমি প্রভু প্রেমময়।

আমি জগতের বাহিরে নহি দেহ চরণে আশ্রয়।।

যাহাদের তরে আমি খাটিনু দিবস-রাতি,

(আমার)যাবার বেলায় কেহ তাদের হ’ল না সাথের সাথি।

সম্পদ মোর পাঁচ ভূতে খায়, কর্ম কেবল সঙ্গে রয়।।

ভুলিয়া সংসার মোহে লই নাই তোমারি নাম –

তরাতে এমন পাপী পাবে না হে ঘনশ্যাম।

শুনেছি তোমারে যদি কাঁদিয়া কেহ ডাকে –

তুমি অমনি তারে কর ক্ষমা চরণে রাখ তাকে।

আমি সেই আশাতে এসেছি নাথ যদি তব কৃপা হয়।।

রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ কাহার্‌বা

Print

ওমা একলা ঘরে ডাকব না আর দুয়ার বন্ধ ক’রে

বাণী

ওমা একলা ঘরে ডাকব না আর দুয়ার বন্ধ ক’রে। 

তুই সকল ছেলের মা যেখানে ডাকব মা সেই ঘরে।।

রুদ্ধ আমার একলা এ মন্দিরে,

পথ না পেয়ে যাস্ বুঝি মা ফিরে,

মোরে জ্যোতির্লোকে ঘুম্ পাড়িয়ে তাপিত সন্তানে নিয়ে

মাগো কাঁদিস্ বুকে ধ’রে।।

আমি একলা মানুষ হ’তে গিয়ে হারাই মা তোর স্নেহ,

আমি যে ঘর যেতে ঘৃণা করি মা,-সেবি তোর গেহ।

দুর্বল মোর ভাই বোনদের তুলে,

আমি দাঁড়াব মা যেদিন, চরণ মূলে।

সেদিন মা তুই আপনি এসে কোলেতুলে নিবি হেসে,

আর হারাব না তোরে।।

রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ দাদ্‌রা

Print

আমি মুক্তা নিতে আসিনি মা

বাণী

(মা) আমি, মুক্তা নিতে আসিনি মা ও মা তোর মুক্তি-সাগর কূলে।

মোর ভিক্ষা-ঝুলি হ’তে মায়ার মুক্তা মানিক নে মা তুলে।।

মা তুই, সবই জানিস অন্তর্যামী,

সেই চরণ-প্রসাদ ভিক্ষু আমি,

শবেরও হয় শিবত্ব লাভ মা তোর যে চরণ ছুঁলে।।

তুই অর্থ দিয়ে কেন ভুলাস এই পরমার্থ ভিখারিরে,

তোর প্রসাদী ফুল পাই যদি মা গঙ্গা ধারাও চাই না শিরে।

তোর শক্তিমন্ত্রে শক্তিময়ী

আমি হতে পারি ব্রহ্ম-জয়ী

সেই মাতৃনামের মহাভিক্ষু তোর মায়াতেও নাহি ভুলে।।

রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ দাদ্‌রা

 

Print

তোমার মহাবিশ্বে কিছু হারায় না তো কভু

বাণী

তোমার মহাবিশ্বে কিছু হারায় না তো কভু।

আমরা অবোধ, অন্ধ মায়ায় তাই তো কাঁদি প্রভু।।

তোমার মতই তোমার ভুবন

চির পূর্ণ, হে নারায়ণ!

দেখতে না পায় অন্ধ নয়ন তাই এ দুঃখ প্রভু।।

ঝরে যে ফল ধূলায় জানি, হয় না তাহা (কভু) হারা,

ঐ ঝরা ফলে নেয় যে জনম তরুণ তরুর চারা –

তারা হয় না কভু হারা।

হারালো (ও) মোর প্রিয় যারা,

তোমার কাছে আছে তারা;

আমার কাছে নাই তাহারা – হারায়নিক’ তবু।।

রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ দাদ্‌রা

Print

মা মা গো আমার অহঙ্কারের মূল কেটে


বাণী

মা, মা গো –
আমার অহঙ্কারের মূল কেটে দে কাঠুরিয়ার মেয়ে,
কত নিরস তরু হ’ল মঞ্জুরিত তোর চরণ-পরশ পেয়ে।।
রোদে পুড়ে জলে ভিজে মা দিয়েছি ফুল ফল
শাখায় আমার, নীড় বেঁধেছে বিহঙ্গের দল।
বটের মত সাড়া দেহ মাগো মায়ার জটে আছে ছেয়ে।।
ও মা মুল আছে তাই বৈতরণীর কূলে আছি পড়ি
নইলে হ’তাম খেয়াঘাটের পারাপারের তরী।
    তুই খড়গের ভয় দেখাস মিছে
    মুক্তি আছে এরি পিছে মাগো
তোর হাসির বাঁশি শুনতে পাবো অসির আঘাত খেয়ে।।

রাগ ও তাল

রাগঃ
তালঃ দাদ্‌রা

Print

অমন করে হাসিস্‌নে আর রাই লো


বাণী

অমন করে হাসিস্‌নে আর রাই লো।
তুই পোড়ার মুখে হাসিস্‌নে আর রাই লো।।
ছি ছি রঙ্গ করিস অঙ্গে মেখে কৃষ্ণ কালির ছাই লো।।
বাঁশি হাতে গাছে চড়া, কয়লা-বরণ গয়লা ছোঁড়া সে লো
সেই নাটের গুরু নষ্টের গোড়া তোর প্রেমের গোঁসাই লো।।
ঐ গো-রাখা রাখালের সনে তোর নিন্দা শুনি বৃন্দাবনে রাই লো
ছি ছি কেষ্ট ছাড়া ইষ্ট কি আর ত্রিভুবনে নাই লো।।
ঐ অমাবস্যার কৃষ্ণ-চাঁদে, বাস্‌লি ভালো কোন্ সুবাদে তুই লো
তুই দিন-কানা হয়েছিস রাধে ভাবিয়া কানাই লো।।

রাগ ও তাল

রাগঃ
তালঃ কাহার্‌বা

লগইন

বাণী দেখা হয়েছে

গানের বাণী দেখা হয়েছে 1647502 বার

ওয়েব সাইটটি দেখা হয়েছে

ওয়েব সাইটটি দেখা হয়েছে 3849815 বার