নোটিশ বোর্ড

নজরুলগীতির সকল অতিথি ও শুভানুধ্যায়ীকে জানাচ্ছি বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

গান শুনুন

Print

তোমার মহাবিশ্বে কিছু হারায় না তো কভু

বাণী

তোমার মহাবিশ্বে কিছু হারায় না তো কভু।

আমরা অবোধ, অন্ধ মায়ায় তাই তো কাঁদি প্রভু।।

তোমার মতই তোমার ভুবন

চির পূর্ণ, হে নারায়ণ!

দেখতে না পায় অন্ধ নয়ন তাই এ দুঃখ প্রভু।।

ঝরে যে ফল ধূলায় জানি, হয় না তাহা (কভু) হারা,

ঐ ঝরা ফলে নেয় যে জনম তরুণ তরুর চারা –

তারা হয় না কভু হারা।

হারালো (ও) মোর প্রিয় যারা,

তোমার কাছে আছে তারা;

আমার কাছে নাই তাহারা – হারায়নিক’ তবু।।

রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ দাদ্‌রা

Print

মা মা গো আমার অহঙ্কারের মূল কেটে


বাণী

মা, মা গো –
আমার অহঙ্কারের মূল কেটে দে কাঠুরিয়ার মেয়ে,
কত নিরস তরু হ’ল মঞ্জুরিত তোর চরণ-পরশ পেয়ে।।
রোদে পুড়ে জলে ভিজে মা দিয়েছি ফুল ফল
শাখায় আমার, নীড় বেঁধেছে বিহঙ্গের দল।
বটের মত সাড়া দেহ মাগো মায়ার জটে আছে ছেয়ে।।
ও মা মুল আছে তাই বৈতরণীর কূলে আছি পড়ি
নইলে হ’তাম খেয়াঘাটের পারাপারের তরী।
    তুই খড়গের ভয় দেখাস মিছে
    মুক্তি আছে এরি পিছে মাগো
তোর হাসির বাঁশি শুনতে পাবো অসির আঘাত খেয়ে।।

রাগ ও তাল

রাগঃ
তালঃ দাদ্‌রা

Print

অমন করে হাসিস্‌নে আর রাই লো


বাণী

অমন করে হাসিস্‌নে আর রাই লো।
তুই পোড়ার মুখে হাসিস্‌নে আর রাই লো।।
ছি ছি রঙ্গ করিস অঙ্গে মেখে কৃষ্ণ কালির ছাই লো।।
বাঁশি হাতে গাছে চড়া, কয়লা-বরণ গয়লা ছোঁড়া সে লো
সেই নাটের গুরু নষ্টের গোড়া তোর প্রেমের গোঁসাই লো।।
ঐ গো-রাখা রাখালের সনে তোর নিন্দা শুনি বৃন্দাবনে রাই লো
ছি ছি কেষ্ট ছাড়া ইষ্ট কি আর ত্রিভুবনে নাই লো।।
ঐ অমাবস্যার কৃষ্ণ-চাঁদে, বাস্‌লি ভালো কোন্ সুবাদে তুই লো
তুই দিন-কানা হয়েছিস রাধে ভাবিয়া কানাই লো।।

রাগ ও তাল

রাগঃ
তালঃ কাহার্‌বা

Print

আমার বিফল পূজাঞ্জলি অশ্রু-স্রোতে যায় যে ভেসে


বাণী

আমার বিফল পূজাঞ্জলি অশ্রু-স্রোতে যায় যে ভেসে
তোমার আরাধিকার পূজা হে বিরহী, লও হে এসে॥
    খোঁজে তোমায় চন্দ্র তপন
    পূজে তোমায় বিশ্বভুবন,
আমার যে নাথ ক্ষণিক জীবন মিটবে কি সাধ ভালবেসে॥
না দেখা মোর, বন্ধু ওগো কোথায়, তুমি কোথায়, বাঁশি বাজাও একা,
প্রাণ বোঝে তা অনুভবে নয়ন কেন পায় না দেখা।
    সিন্ধু যেমন বিপুল টানে
    তটিনীরে টেনে আনে,
তেমনি করে তোমার পানে আমায় ডাকো নিরুদ্দেশে॥

রাগ ও তাল

রাগঃ
তালঃ দাদ্‌রা

Print

বিদায়-সন্ধা আসিল ঐ ঘনায় নয়নে অন্ধকার


বাণী

বিদায়-সন্ধা আসিল ঐ ঘনায় নয়নে অন্ধকার।
হে প্রিয়, আমার, যাত্রা-পথ অশ্রু-পিছল ক’রো না আর॥
    এসেছিনু ভেসে স্রোতের, ফুল
    তুমি কেন প্রিয় করিলে ভুল
তুলিয়া খোঁপায় পরিয়া তা’য় ফেলে দিলে হায় স্রোতে আবার॥
    হেথা কেহ কারো বোঝে না মন
    যারে চাই হেলা হানে সে’ জন
যারে পাই সে না হয় আপন হেথা নাহি হৃদি ভালোবাসার।
    তুমি বুঝিবে না কি অভিমান
    মিলনের মালা করিল ম্লান
উড়ে যাই মোর, দূর বিমান সেথা গা’ব গান আশে তোমার॥

রাগ ও তাল

রাগঃ ভীমপলশ্রী মিশ্র
তালঃ একতাল

Print

মোরা বিহান-বেলা উঠে রে ভাই চাষ করি এই মাটি


বাণী

    মোরা বিহান-বেলা উঠে রে ভাই চাষ করি এই মাটি।
    যে মাটির বুকে আছে পাকা ধানের সোনার কাঠি॥
    ফসল বুনে রোদের তাতে উঠি যখন ঘেমে
    সদয় হয়ে আকাশ বেয়ে বৃষ্টি আসে নেমে
(ওরে)    মুচকি হেসে বৌ এনে দেয় পান্তা ভাতের বাটি॥
    আশ মেটে না চারা ধানের পানে চেয়ে চেয়ে
    মরাই ভ’রে থাকবে ওরাই আমার ছেলে মেয়ে।
(আমি)    চাই না স্বর্গ, পাই যদি এই পাকা ধানের আটি (রে ভাই)॥
    জল নিতে যায় আড়চোখে চায় বৌ-ঝি নদীর কূলে
    খুশিতে বুক ভ’রে ওঠে, খাটুনি যাই ভুলে।
    এ মাঠ নয় ভাই বৌ পেতেছে ঠান্ডা শীতল পাটি॥

রাগ ও তাল

রাগঃ
তালঃ কাহার্‌বা

লগইন

বাণী দেখা হয়েছে

গানের বাণী দেখা হয়েছে 1593208 বার

ওয়েব সাইটটি দেখা হয়েছে

ওয়েব সাইটটি দেখা হয়েছে 3795318 বার