নোটিশ বোর্ড

সম্মানিত অতিথি আপনার প্রিয় নজরুলগীতিটি এই ওয়েব সাইটে খুঁজে না পেলে অনুগ্রহ করে আমাদের জানান। আমরা যথা-শীঘ্র সেইটি সংযোজন করার চেষ্টা করবো।

গান শুনুন

সকল গানের বাণী

Print

খা খা খা তোর বক্ষিলারে খা


বাণী

গানের শুরুতে নীচের কথাগুলি সাপুড়েদের মন্ত্র-পড়ার ঢংয়ে আবৃত্তি করা হয়েছে:
'খা খা খা
তোর বক্ষিলারে খা
তারি দিব্যি ফণাতে তোর যে ঠাকুরের পা'
বিষহরি শিবের আজ্ঞ্যে দোহাই মনসা,
আমায় যদি কামড়াস খাস জরৎ-কারুর হাড়
নাচ নাগিনী ফণা তুলে, নাচ রে হেলেদুলে
মারলে ছোবল বিষ-দাঁত তোর অমনি নেব তুলে
বাজ তুবরী বাজ ডমরু বাজ, নাচ রে নাগ-রাজা।।
সাপুড়িয়া রে-
বাজাও বাজাও সাপ -খেলানোর বাঁশি।
কালিদহে ঘোর উঠিল তরঙ্গ রে
কালনাগিনী নাচে বাহিরে আসি।।
ফণি-মনসার কাঁটা -কুঞ্জতলে
গোখরা কেউটে এলো দলে দলে রে
সুর শুনে ছুটে এলো পাতাল-তলের
বিষধর বিষধরী রাশি রাশি।।
শন-শন-শন-শন পুব হাওয়াতে
তোমার বাঁশি বাজে বাদলা- রাতে
মেঘের ডমরু বাজাও গুরু গুরু বাঁশির সাথে।
অঙ্গ জর জর বিষে
বাঁচাও বিষহরি এসে রে
এ কি বাঁশি বাজালো কালা, সর্বনাশী।।

রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ কাহারবা

Print

খাতুনে জান্নাত ফাতেমা জননী

বাণী

খাতুনে জান্নাত ফাতেমা জননী — বিশ্ব-দুলালী নবী নন্দিনী,
মদিনাবাসিনী পাপতাপ নাশিনী উম্মত-তারিণী আনন্দিনী।।
	সাহারার বুকে মাগো তুমি মেঘ-মায়া,
	তপ্ত মরুর প্রাণে স্নেহ-তরুছায়া;
মুক্তি লভিল মাগো তব শুভ পরশে বিশ্বের যত নারী বন্দিনী।।
হাসান হোসেনে তব উম্মত তরে, মাগো
কারবালা প্রান্তরে দিলে বলিদান,
বদলাতে তার রোজ হাশরের দিনে
চাহিবে মা মোর মত পাপীদের ত্রাণ।
	এলে পাষাণের বুকে চিরে নির্ঝর সম,
	করুণার ক্ষীরধারা আবে-জমজম;
ফিরদৌস হ’তে রহমত বারি ঢালো সাধ্বী মুসলিম গরবিনী।।

রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ কাহার্‌বা

ভিডিও

Print

খুলেছে আজ রঙের দোকান বৃন্দাবনে হোরির দিনে


বাণী

খুলেছে আজ রঙের দোকান বৃন্দাবনে হোরির দিনে।

প্রেম-রঙিলা ব্রজ-বালা যায় গো হেথায় আবির কিনে।।

     আজ গোকুলের রঙ মহলায়

     রামধনু ঐ রঙ পিয়ে যায়

সন্ধ্যা-সকাল রাঙতো না গো ঐ হোরির কুমকুম বিনে।।

রঙ কিনিতে এসে সেথায় রব শশী আকাশ ভেঙে'

এই ফাগুনী ফাগের রাগে অশোক শিমুল ওঠে রেঙে'।

আসে হেথায় রাধা-মাধব এই রঙেরই পথ চিনে।।


রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ কাহারবা

Print

খেলত বায়ু ফুলবন-মে আও প্রাণ-পিয়া


বাণী

খেলত বায়ু ফুলবন-মে, আও প্রাণ-পিয়া।।

আও মন-মে প্রেম-সাথি আজ রজনী, গাও প্রেম-পিয়া।।

মন-বন-মে প্রেম মিলি দোলত হ্যয় ফুল কলি

বোলত হ্যয় পিয়া পিয়া বাজে মুরলীয়া, আওয়ে শ্যাম পিয়া।।

মন্দির মে বাজত হ্যয় পিয়া তব মুরতি

প্রেম পূজা লেও পিয়া, আও প্রেম-সাথি

চাঁদ হাসে তারা সাথে আও পিয়া প্রেম-রথে

সুন্দর হায় প্রেম-রাতি আও মোহনীয়া, আও প্রাণ পিয়া।।


রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ কাহারবা

Print

খেলি আয় পুতুল-খেলা ব’য়ে যায় খেলার বেলা

বাণী

খেলি আয় পুতুল-খেলা ব’য়ে যায় খেলার বেলা সই।

বাবা ঐ যান আপিসে ভাবনা কিসের খোকারা দোলায় ঘুমোয় ঐ।।

দাদা যান ইস্কুলেতে, মা খুড়ি মা রান্না করেন ঐ হেঁসেলে

ঠানদি দাওয়ায় ঝীমায় ব’সে ফোকলা বদন মেলে।

আয় লো ভুলি পঞ্চি টুলি পটলি খেঁদি কই।।

 

নাটিকাঃ‘পুতুলের বিয়ে’

রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ দাদ্‌রা

Print

খেলিছ এ বিশ্ব লয়ে

বাণী

খেলিছ এ বিশ্ব লয়ে বিরাট শিশু আনমনে।

প্রলয় সৃষ্টি তব পুতুল খেলা নিরজনে প্রভু নিরজনে।।

শূন্যে মহা আকাশে

মগ্ন লীলা বিলাসে,

ভাঙিছ গড়িছ নিতি ক্ষণে ক্ষণে।।

তারকা রবি শশী খেলনা তব, হে উদাসী,

পড়িয়া আছে রাঙ্ পায়ের কাছে রাশি রাশি।

নিত্য তুমি, হে উদার

সুখে দুখে অবিকার;

হাসিছ খেলিছ তুমি আপন মনে।।


রাগ ও তাল

রাগঃ ভৈরবী

তালঃ কাহার্‌বা


অডিও

শিল্পীঃ অনুপ জালোটা

 

 

Print

খেলিছে জলদেবী

বাণী

 

খেলিছে জলদেবী সুনীল সাগর জলে।

 

তরঙ্গ - লহর তোলে লীলায়িত কুন্তলে।।

 

ছল-ছল উর্মি-নূপুর

 

স্রোত-নীরে বাজে কাঁকন কেয়ুর

 

ঝিনুকের মেখলা কটিতে দোলে।।

 

আনমনে খেলে জল-বালিকা

 

খুলে পড়ে মুকুতা মালিকা

 

হরষিত পারাবারে উর্মি জাগে

 

লাজে চাঁদ লুকালো গগন তলে।।

 

রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ কাহার্‌বা


অডিও

শিল্পীঃ রেবেকা সুলতানা

 

 

Print

খেলে চঞ্চলা বরষা-বালিকা


বাণী

খেলে চঞ্চলা বরষা-বালিকা

মেঘের এলোকেশে ওড়ে পুবালি বায়

দোলে গলায় বলাকার মালিকা।।

চপল বিদ্যুতে হেরি' সে চপলার

ঝিলিক হানে কণ্ঠের মণিহার,

নীল আঁচল হতে তৃষিত ধরার পথে

ছুড়ে ফেলে মুঠি মুঠি বৃষ্টি শেফালিকা।।

কেয়া পাতার তরী ভাসায় কমল -ঝিলে

তরু-লতার শাখা সাজায় হরিৎ নীলে।

ছিটিয়ে মেঠো জল খেলে সে অবিরল

কাজলা দীঘির জলে ঢেউ তোলে

আনমনে ভাসায় পদ্ম-পাতার থালিকা।।


রাগ ও তাল

রাগঃ

তালঃ কাহারবা

লগইন

বাণী দেখা হয়েছে

গানের বাণী দেখা হয়েছে 1553627 বার

ওয়েব সাইটটি দেখা হয়েছে

ওয়েব সাইটটি দেখা হয়েছে 3755837 বার