ইসলামী

  • আজি আল কোরায়শী প্রিয় নবী এলেন ধরাধাম

    বাণী

    আজি	আল কোরায়শী প্রিয় নবী এলেন ধরাধাম
    তাঁর	কদম মোবারকে লাখো হাজারো সালাম।
    	তওরত ইঞ্জিলে মুসা ঈসা পয়গম্বর
    	বলেছিলেন আগাম যাঁহার আসারি খবর
    	রব্বুলে দায়ের যাঁহার দিয়েছিলেন নাম
    	সেই আহমদ মোর্তজা আজি এলেন আরব ধাম।।
    	আদমেরি পেশানিতে জ‍্যোতি ছিল যাঁর
    	যাঁর গুণে নূহ তরে গেল তুফান পাথার
    	যাঁর নূরে নমরুদের আগুন হলো ফুলহার
    	সেই মোহাম্মদ মুস্তাফা এলেন নিয়ে দীন-ইসলাম।।
    	এলেন কাবার মুক্তিদাতা মসজিদের প্রাণ,
    	শাফায়াতের তরী এলে পাপী তাপীর ত্রাণ
    	দিকে দিকে শুনি খোদার নামের আজান
    	নবীর রূপে এলো খোদার রহমতেরি জাম।।
    
  • আল্লা নামের বীজ বুনেছি

    বাণী

    আল্লা নামের বীজ বুনেছি এবার মনের মাঠে।
    ফলবে ফসল বেচব তারে কেয়ামতের হাটে।।
    	পত্তনীদার যে এ জমির
    	খাজনা দিয়ে সেই নবীজীর
    বেহেশতেরই তালুক কিনে বসব সোনার খাটে।।
    মসজিদে মোর মরাই বাঁধা হবে নাকো চুরি,
    মনকির নকির দুই ফেরেশতা হিসাব রাখে জুড়ি' রে;
    	রাখবো হেফাজতের তরে
    	ঈমানকে মোর সাথী করে,
    রদ হবে না কিস্তি (মোর), জমি উঠবে না আর লাটে।।
    

  • এলো আবার ঈদ ফিরে

    বাণী

    	এলো আবার ঈদ ফিরে এলো আবার ঈদ, চলো ঈদগাহে।
    	যাহার আশায় চোখে মোদের ছিল না রে নিদ, চলো ঈদ্গাহে।।
    	শিয়া সুন্নী, লা-মজহাবী একই জামাতে
    	এই ঈদ মোবারকে মিলিবে এক সাথে,
    	ভাই পাবে ভাইকে বুকে, হাত মিলাবে হাতে;
    আজ	এক আকাশের নীচে মোদের একই সে মসজিদ, চলো ঈদগাহে।।
    	ঈদ এনেছে দুনিয়াতে শিরণী বেহেশ্‌তী,
    	দুশ্‌মনে আজ গলায় ধ'রে পাতাব ভাই দোস্তী,
    	জাকাত দেব ভোগ-বিলাস আজ গোস্‌সা ও বদ্‌মস্তি;
    	প্রাণের তশ্‌তরীতে ভ'রে বিলাব তৌহীদ — চলো ঈদ্গাহে।।
    	আজিকার এই ঈদের খুশি বিলাব সকলে,
    	আজের মত সবার সাথে মিল্‌ব গলে গলে,
    	আজের মত জীবন-পথে চলব দলে দলে
    	প্রীতি দিয়ে বিশ্ব-নিখিল ক'রব রে মুরীদ্ — চলো ঈদগাহে।।
    
  • তোমারি মহিমা গাই বিশ্বপালক করতার

    বাণী

    তোমারি মহিমা গাই বিশ্বপালক করতার
    করুণা কৃপার তব নাহি সীমা নাহি পার॥
    রোজ-হাশরের বিচার-দিনে তুমিই মালিক এয়্ খোদা,
    আরাধনা করি প্রভু, আমরা কেবলি তোমার॥
    সহায় যাচি তোমারি নাথ, দেখাও মোদের সরল পথ,
    সেই পথেতে চালাও খোদা বিলাও যাদের পুরস্কার।
    অবিশ্বাসী ধর্মহারা যাহারা সে ভ্রান্ত-পথ,
    চালায়ো না তাদের পথে, এই চাহি পরওয়ারদিগার॥
    

    বৈতালিক

  • দূর আজানের মধুর ধ্বনি বাজে বাজে

    বাণী

    দূর আজানের মধুর ধ্বনি বাজে বাজে মসজিদেরই মিনারে।
    এ কী খুশির অধীর তরঙ্গ উঠলো জেগে’ প্রাণের কিনারে।।
    মনে জাগে হাজার বছর আগে
    	ডাকিত বেলাল এমনি অনুরাগে,
    তাঁর খোশ এলেহান, মাতাইত প্রাণ গলাইত পাষাণ ভাসাইত মদিনারে
    		প্রেমে ভাসাইত মদিনারে।।
    তোরা ভোল গৃহকাজ, ওরে মুসলিম থাম
    চল খোদার রাহে, শোন, ডাকিছে ইমাম।
    মেখে’ দুনিয়ারই খা, বৃথা রহিলি না-পাক,
    চল মসজিদে তুই, শোন মোয়াজ্জিনের ডাক,
    তোর জনম যাবে বিফলে যে ভাই এই ইবাদতে বিনা রে।।
    
  • বক্ষে আমার কাবার ছবি

    বাণী

    বক্ষে আমার কাবার ছবি চক্ষে মোহাম্মদ রসুল।
    শিরোপরি মোর খোদার আরশ গাই তাঁরি গান পথ বেভুল।।
    লায়লী প্রেমে মজনু পাগল আমি পাগল লা-ইলা’র,
    প্রেমিক দরবেশ আমায় চেনে অরসিকে কয় বাতুল।।
    হৃদয়ে মোর খুশির বাগান বুলবুলি তায় গায় সদাই,
    ওরা খোদার রহম মাগে আমি খোদার ইশ্‌ক্‌ চাই।
    আমার মনের মস্‌জিদে দেয় আজান হাজার মোয়াজ্জিন
    প্রাণের ‘লওহে’ কোরান লেখা রুহ্‌ পড়ে তা রাত্রি দিন।
    খাতুনে জিন্নত মা আমার হাসান হোসেন চোখের জেল,
    ভয় করি না রোজ-কেয়ামত পুল সিরাতের কঠিন পুল।।
    
  • রসুল নামের ফুল এনেছি রে

    বাণী

    রসুল নামের ফুল এনেছি রে (আয়) গাঁথবি মালা কে
    এই মালা নিয়ে রাখবি বেঁধে আল্লা তালাকে॥
    	অতি অল্প ইহার দাম
    	শুধু আল্লা রসুল নাম
    এই মালা প’রে দুঃখ শোকের ভুলবি জ্বালাকে॥
    এই ফুল ফোটে ভাই দিনে রাতে (ভাইরে ভাই) হাতের কাছে তোর
    ও তুই কাঁটা নিয়ে দিন কাটালি রে তাই রাত হ’ল না ভোর।
    	এর সুগন্ধ আর রূপ র’য়ে যায়
    	নিত্য এসে তোর দরজায় রে
    পেয়ে ভাতের থালা ভুললি রে তুই চাঁদের থালাকে॥
    
  • সাহারাতে ফুটল রে রঙিন গুলে লালা

    বাণী

    সাহারাতে ফুটল রে রঙিন গুলে লালা
    সেই ফুলেরি খোশবুতে আজ দুনিয়া মাতোয়ালা।।
    সে ফুল নিয়ে কাড়াকাড়ি চাঁদ -সুরুজ গ্রহ-তারায়
    ঝুঁকে প'ড়ে চুমে সে ফুল নীল গগন নিরালা।।
    সেই ফুলেরি রঙ লেগে আজ ত্রিভুবন উজালা।।
    চাহে সে ফুল জ্বীন ও ইনসান হুরপরী ফেরেশতায়
    ফকির দরবেশবাদশা চাহে করিতে গরার মালা (তারে)
    চেনে রসিক ভ্রমর,বুলবুল সেই ফুলের ঠিকানা
    কেউ বলে হযরত মোহাম্মদ (বলে) কেউ বা কমলিওয়ালা।।
    

  • হে নামাজী আমার ঘরে নামাজ পড় আজ

    বাণী

    হে নামাজী! আমার ঘরে নামাজ পড় আজ।
    দিলাম তোমার চরণ-তলে হৃদয় -জায়নামাজ।
    	আমি গুনাহগার বে-খবর,
    	নামাজ পড়ার ন্ই অবসর
    (তব) চরণ-ছোঁয়ায় এই পাপীরে কর সরফরাজ।।
    তোমার ওজুর পানি মোছ আমার পিরান দিয়ে
    আমার এ ঘর হোক মসজিদ তোমার পরশ নিয়ে।
    	যে শয়তানের ফন্দিতে ভাই,
    	খোদায় ডাকার সময় না পাই
    সেই শয়তান যাক দূরে, শুনে তকবীরের আওয়াজ।।