ঋতুভিত্তিক

  • এলো এলো রে বৈশাখী ঝড় এলো এলো রে

    বাণী

    এলো এলো রে বৈশাখী ঝড় এলো এলো রে,
    ঐ বৈশাখী ঝড় এলো এলো মহীয়ান সুন্দর।
    পাংশু মলিন ভীত কাঁপে অম্বর চরাচর থরথর।।
    ঘনবন–কুন্তলা বসুমতী সভয়ে করে প্রণতি,
    সভয়ে নত চরণে ভীতা বসুমতী।
    সাগর তরঙ্গ মাঝে তারি মঞ্জীর যেন বাজে বাজে রে
    পায়ে গিরি–নির্ঝর–ঝরঝর ঝরঝর।।
    ধূলি–গৈরিক নিশান দোলে ঈশান গগন চুম্বী,
    ডম্বরু ঝল্লরী ঝাঁঝর ঝনঝন বাজে
    এলো ছন্দ বন্ধন–হারা এলো রে
    এলো মরু–সঞ্চর বিজয়ী বীরবর।।
    
  • ঝড় এসেছে ঝড় এসেছে কাহারা যেন ডাকে

    বাণী

    ঝড় এসেছে ঝড় এসেছে কাহারা যেন ডাকে।
    বেরিয়ে এলো নতুন পাতা পল্লবহীন শাখে।।
    	ক্ষুদ্র আমার শুকনো ডালে
    	দুঃসাহসের রুদ্র ভালে
    কচি পাতার লাগলো নাচন ভীষণ ঘূর্ণিপাকে।
    স্তবির আমার ভয় টুটেছে গভীর শঙ্খ-রবে,
    মন মেতেছে আজ  নতুনের ঝড়ের মহোৎসবে।
    	কিশলয়ের জয়-পতাকা
    	অন্তরে আজ মেললো পাখা
    প্রণাম জানাই ভয়-ভাঙানো অভয়-মহাত্মাকে।।
    

  • বরষা ঋতু এলো এলো বিজয়ীর সাজে

    বাণী

    	বরষা ঋতু এলো এলো বিজয়ীর সাজে
    বাজে	গুরু গুরু আনন্দ ডম্বরু অম্বর মাঝে।।
    বাঁকা	বিদ্যুৎ তরবারি ঘন ঘন চমকায়
    	হানে তীর বৃষ্টি অবিরল ধারায়
    শুনি’	রথ-চক্রের ধ্বনি অশনির রোলে
    			সিন্ধু তরঙ্গে মঞ্জির বাজে।।
    	ভীত বন-উপবন লুটায়ে লুটায়ে
    	প্রণতি জানায় সেই বিজয়ীর পায়ে।
    তার	অশান্ত গতিবেগ শুনি’ পুব হাওয়াতে
    	চলে মেঘ-কুঞ্জর-সেনা তারি সাথে
    	তূণীর কেতকীর জল-ধনু হাতে
    	চঞ্চল দুরন্ত গগনে বিরাজে।।