নোটিশ বোর্ড

সম্মানিত অতিথিগণ সার্ভারের কারিগরি সমস্যার কারণে মাঝে মধ্যে নজরুলগীতি ওয়েব সাইটটি দেখতে সমস্যা হচ্ছে। এই অনাকাঙ্ক্ষিত অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

গান শুনুন

Print

কোন্‌ সুদূরের চেনা

বাণী

কোন্‌ সুদূরের চেনা বাঁশির ডাক শুনেছিস্‌ ওরে চখা?

ওরে আমার পলাতকা!

তোর ড়লো মনে কোন্‌ হানাঘর,

স্বপন-পারের কোন্‌ অলকা?

ওরে আমার পলাতকা।।

তোর জল ভরেছে চপল চোখে,
বল  কোন্‌ হারামা ডাক্‌লো তোকে রে
গগনসীমায় সাঁঝের ছায়ায়

হাতছানি দেয় নিবিড় মায়ায়

উতল পাগল! চিনিস্‌ কি তুই চিনিস্‌ ওকে রে?
যেন বুকভরা ও গভীর স্নেহে ডাক দিয়ে যায়, ‘আয়,

ওরে আয় আয় আয়,

কোলে আয় রে আমার দুষ্টু খোকা!

ওরে আমার পলাতকা।।

দখিন হাওয়ায় বনের কাঁপনে

দুলাল আমার! হাতইশারায় মা কি রে তোর

ডাক দিয়েছে আজ?

এতদিনে চিনলি কি রে পর ও আপনে!

নিশিভোরেই তাই কি আমার নামলো ঘরে সাঁঝ?

ধানের শীষে, শ্যামার শিষে

যাদুমণি! বল্‌ সে কিসে রে,

তুই শিউরে চেয়ে ছিঁড়্‌লি বাঁধন!

চোখ ভরা তোর উছলে কাঁদন রে!

তোরে কে পিয়ালো সবুজ স্নেহের কাঁচা বিষে রে!

‌‌ যেন আচম্‌কা কোন্‌ শশকশিশু চম্‌কে ডাকে হায়,

ওরে আয় আয় আয়

বনে আয় ফিরে আয় বনের সখা।
ওরে চপল পলাতকা।।

রাগ ও তাল

রাগঃ গৌড়মল্লার

তালঃ দাদ্‌রা


অডিও

শিল্পীঃ সুধীন দাস

 

Print

কেমনে রাখি আঁখি–বারি চাপিয়া

বাণী

কেমনে রাখি আঁখিবারি চাপিয়া

প্রাতে কোকিল কাঁদে নিশীথে পাপিয়া।।

এ ভরা ভাদরে আমার মরা নদী

উথলি উথলি উঠিছে নিরবধি

আমার এ ভাঙা ঘটে, আমার এ হৃদিতটে

চাপিতে গেলে ওঠে দুকূল ছাপিয়া।।

নিষেধ নাহি মানে আমার এ পোড়া আঁখি

জল লুকাবো কত কাজল মাখি মাখি

ছলনা করে হাসি, অমনি জলে ভাসি

ছলিতে গিয়া আসি ভয়েতে কাঁপিয়া।।

রাগ ও তাল

রাগঃ দুর্গা (খাম্বাজ ঠাট)

তালঃ আদ্ধা


অডিও

শিল্পীঃ সন্ধ্যা

 

Print

কেন আসিলে ভালোবাসিলে

বাণী

কেন আসিলে ভালোবাসিলে দিলে না ধরা জীবনে যদি।
বিশাল চোখে মিশায়ে মরু চাহিলে কেন গো বেদরদী।।

ছিনু অচেতন আপনা নিয়ে

কেন জাগালে আঘাত দিয়ে
তব আঁখিজল সে কি শুধু ছল একি মরু হায় নহে জলধি।।
ওগো কত জনমের কত সে কাঁদন করে হাহাকার বুকেরি তলায়
ওগো কত নিরাশায় কত অভিমান ফেনায়ে ওঠে গভীর ব্যথায়।
মিলন হবে কোথায় সে কবে কাঁদিছে সাগর স্মরিয়া নদী।।

রাগ ও তাল

রাগঃ ভৈরবী

তালঃ কাহার্‌বা


অডিও

শিল্পীঃ সাবিহা মাহবুব

 

Print

কেন আন ফুল–ডোর আজি বিদায় বেলা


বাণী

কেন     আন ফুল-ডোর আজি বিদয়-বেলা,
মোছ     মোছ আঁখি-লোর যদি ভাঙিল মেলা॥
কেন     মেঘের স্বপন আন মরুর চোখে,
ভু’লে     দিয়ো না কুসুম যারে দিয়েছ হেলা॥
যবে     শুকাল কানন এলে বিধুর পাখি,
ল’য়ে     কাঁটা-ভরা প্রাণ এ কি নিঠুর খেলা।
যদি     আকাশ-কুসুম পেলি চকিতে কবি,
চল     চল মুসাফির, ডাকে পারের ভেলা॥

রাগ ও তাল

রাগঃ ভীমপলশ্রী মিশ্র
তালঃ আদ্ধা-কাওয়ালি

Print

কালো মেয়ের পায়ের তলায়


বাণী

কালো মেয়ের পায়ের তলায় দেখে যা আলোর নাচন।
(তার) রূপ দেখে দেয় বুক পেতে শিব যার হাতে মরণ বাঁচন।।
কালো মায়ের আঁধার কোলে
শিশু রবি শশী দোলে
(মায়ের) একটুখানি রূপের ঝলক স্নিগ্ধ বিরাট নীল–গগন।।
পাগলী মেয়ে এলোকেশী নিশীথিনীর দুলিয়ে কেশ
নেচে বেড়ায় দিনের চিতায় লীলার রে তার নাই কো শেষ।
সিন্ধুতে মা’র বিন্দুখানিক
ঠিকরে পড়ে রূপের মানিক
বিশ্বে মায়ের রূপ ধরে না মা আমার তাই দিগ্‌–বসন।।


রাগ ও তাল

রাগঃ জৌনপুরী
তালঃ দাদ্‌রা


অডিও

শিল্পীঃ অনুপ ঘোষাল


Print

কারার ওই লৌহকপাট


বাণী

কারার ঐ লৌহ-কপাট
ভেঙ্গে ফেল্ কর্‌ রে লোপাট রক্ত-জমাট
শিকল-পূজার পাষাণ-বেদী!
ওরে ও তরুণ ঈশান!
বাজা তোর প্রলয়-বিষাণ! ধ্বংস-নিশান
উঠুক প্রাচী-র প্রাচীর ভেদি’॥
গাজনের বাজনা বাজা!
কে মালিক? কে সে রাজা? কে দেয় সাজা
মুক্ত-স্বাধীন সত্য কে রে?
হা হা হা পায় যে হাসি, ভগবান প’রবে ফাঁসি? সর্বনাশী –
শিখায় এ হীন্ তথ্য কে রে?
ওরে ও পাগ্‌লা ভোলা, দেরে দে প্রলয়-দোলা গারদগুলা
জোরসে ধ’রে হ্যাঁচকা টানে।
মার্‌ হাঁক হায়দরী হাঁক্ কাঁধে নে দুন্দুভি ঢাক ডাক ওরে ডাক
মৃত্যুকে ডাক জীবন-পানে॥
নাচে ঐ কাল-বোশেখী, কাটাবি কাল ব’সে কি?
দে রে দেখি ভীম কারার ঐ ভিত্তি নাড়ি’।
লাথি মার, ভাঙ্‌রে তালা! যত সব বন্দী-শালায় –
আগুন জ্বালা, আগুন জ্বালা, ফেল্ উপাড়ি॥

সিনেমাঃ ‘চট্রগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠন’

রাগ ও তাল

রাগঃ
তালঃ দ্রুত-দাদ্‌রা

লগইন

বাণী দেখা হয়েছে

গানের বাণী দেখা হয়েছে 1819365 বার

ওয়েব সাইটটি দেখা হয়েছে

ওয়েব সাইটটি দেখা হয়েছে 4011925 বার