ইসলামী

  • শোন শোন ইয়া ইলাহী আমার মোনাজাত

    বাণী

    শোন শোন, ইয়া ইলাহী,
    	আমার মোনাজাত।
    তোমারি নাম জপে যেন,
    	(আমার) হৃদয় দিবস-রাত।।
    যেন কানে শুনি সদা
    তোমারি কালাম হে খোদা,
    (আমি) চোখে যেন দেখি শুধু,
    	(দেখি) কোরআনের আয়াত।।
    মুখে যেন জপি আমি
    কলেমা তোমার দিবস-যামী,
    (তোমার) মসজিদেরি ঝাড়ু-বরদার,
    	(খোদা) হোক আমার এ হাত।
    সুখে তুমি, দুখে তুমি,
    চোখে তুমি, বুকে তুমি,
    এই পিয়াসি প্রাণে খোদা
    	(খোদা) তুমি আবহায়াত।।
    
  • সকাল হ'ল শোন রে আজান

    বাণী

    সকাল হ'ল শোন রে আজান
    	ওঠ রে শয্যা ছাড়ি'
    তুই মসজিদে চল দ্বীনের কাজে
    	ভোল দুনিয়াদারি।।
    ওজু করে ফেল রে ধুয়ে
    	নিশীথ রাতের গ্লানি
    সিজদা করে জায়নামাজে
    	ফেল রে চোখের পানি;
    খোদার নামে সারাদিনের
    	কাজ হবে না ভারী।।
    নামাজ প'ড়ে দু'হাত তুলে
    	প্রার্থনা কর তুই -
    ফুল-ফসলে ভ'রে উঠুক
    	সকল চাষির ভূঁই
    সকল লোকের মুখে হোক
    	আল্লার নাম জারী।।
    ছেলে-মেয়ে সংসার-ভার
    	সঁপে দে আল্লারে
    নবীজীর দোয়া ভিক্ষা কর
    	কর রে বারে বারে;
    তোর হেসে নিশি প্রভাত হবে
    	সুখে দিবি পাড়ি।।
    

  • সদা মন চাহে মদিনা যাবো

    বাণী

    সদা মন চাহে মদিনা যাবো,
    আমার রসূলে আরবী, না হেরে নয়নে,
    			কি সুখে গৃহে র’বো।।
    মদিনার বুকে রয়েছে ঘুমায়ে আমার বুকের নিধি
    তায় বুকে তার মিলাইব বুক পায়ে লুটাইব নিরবধি
    ধূলিকণা হবো, আমি ধূলিকণা হবো
    (ওগো) নবী পদরেখা যেই পথে আঁকা 
    			সেই পথে বিছাইবো।
    আবিল হতে দেবো না, মধুর স্বপন তপ্ত বরণ
    আবিল হতে দেবো না।
    সদা আকুল পিয়াসা জাগে
    পদমুখো হ'য়ে কদম রসূল
    চুম্‌ দিবো অনুরাগে।
    ধূলি হ’বো, আমি সেই পথের ওই ধূলি হ’বো
    নবী যে পথ দিয়ে চলেছিলেন
    সেই পথের ওই ধূলি হবো
    শুধু পায়ের চিহ্ন পরশ পাবো
    			সেই পথের ওই ধূলি হ’বো।।
    প্রিয় নবীর রাঙা পা দু'খানি
    চুমিব সদা দিবস-যামী,
    আমার জীবনে লেগেছে নয়নের স্বাদ
    জুড়াতে আমার দেখিবো
    পোড়া নয়নের মোর আছে বড় খেদ
    মিটেনি আমার তৃষা গো
    হেথা নয়নের তৃষা অধরে মিটাতে
    			এবার আমি ধূলি হ’বো।।
    

    লেটোদলের গান
    কীর্তনের সুরে নাত-এ রসুল

  • সাহারাতে ফুটল রে রঙিন গুলে লালা

    বাণী

    সাহারাতে ফুটল রে রঙিন গুলে লালা
    সেই ফুলেরি খোশবুতে আজ দুনিয়া মাতোয়ালা।।
    সে ফুল নিয়ে কাড়াকাড়ি চাঁদ -সুরুজ গ্রহ-তারায়
    ঝুঁকে প'ড়ে চুমে সে ফুল নীল গগন নিরালা।।
    সেই ফুলেরি রঙ লেগে আজ ত্রিভুবন উজালা।।
    চাহে সে ফুল জ্বীন ও ইনসান হুরপরী ফেরেশতায়
    ফকির দরবেশবাদশা চাহে করিতে গরার মালা (তারে)
    চেনে রসিক ভ্রমর,বুলবুল সেই ফুলের ঠিকানা
    কেউ বলে হযরত মোহাম্মদ (বলে) কেউ বা কমলিওয়ালা।।
    

  • সেই রবিয়ল আউয়ালেরই চাঁদ এসেছে ফিরে

    বাণী

    সেই রবিয়ল আউয়ালেরই চাঁদ এসেছে ফিরে
    		ভেসে আকুল অশ্রুনীরে।
    আজ মদিনার গোলাপ বাগে বাতাস বহে ধীরে
    		ভেসে আকুল অশ্রুনীরে।।
    	তপ্ত বুকে আজ সাহারার
    	উঠেছে রে ঘোর হাহাকার
    মরুর দেশে এলো আঁধার শোকের বাদল ঘিরে।।
    চবুতরায় বিলাপ করে কবুতরগুলি খোঁজে নবীজীরে।
    কাঁদিছে মেষশাবক, কাঁদে বনের বুলবুলি গোরস্থান ঘিরে।।
    	মা ফাতেমা লুটিয়ে প’ড়ে
    	কাঁদে নবীর বুকের পরে
    আজ দুনিয়া জাহান কাঁদে কর হানি শিরে।।
    
  • সৈয়দে মক্কী মদনী আমার নবী মোহাম্মদ

    বাণী

    সৈয়দে মক্কী মদনী আমার নবী মোহাম্মদ
    করুণা-সিন্ধু খোদার বন্ধু নিখিল মানব-প্রেমাস্পদ।।
    আদম নূহ, ইব্রাহিম দাউদ সোলেয়মান মুসা আর ঈসা,
    সাক্ষ্য দিল আমার নবীর, সবার কালাম হ'ল রদ।
    যাঁহার মাঝে দেখল জগৎ ইশারা খোদার নূরের,
    পাপ-দুনিয়ায় আনলো যে রে, পুণ্য বেহেশতী সনদ।।
    হায় সিকান্দর খুঁজল বৃথাই আব-হায়াত এই দুনিয়ায়
    বিলিয়ে দিল আমার নবী, সে সুধা মানব সবায়।
    হায় জুলেখা মজল ঐ ইউসুফেরই রূপ দেখে,
    দেখলে মোদের নবীর সুরত, যোগীন হত ভসম মেখে'।
    শুনলে নবীর শিঁরিন জবান, দাউদ মাগিত মদদ।।
    ছিল নবীর নূর পেশানিতে, তাই ডুবল না কিস্তি নূহের
    পুড়ল না আগুনে হযরত ইব্রাহিম সে নমরুদের
    হায়, দোজখ আমার হারাম হ'ল পিয়ে কোরানের শিঁরিন শ্যহদ।।
    
  • হাতে হাত দিয়ে আগে চল হাতে নাই থাক হাতিয়ার

    বাণী

    হাতে হাত দিয়ে আগে চল হাতে নাই থাক হাতিয়ার।
    জমায়েত হও, আপনি আসিবে শক্তি জুলফিকার।।
    আন আলীর শৌর্য, হোসেনের ত্যাগ ওমরের মত কর্মানুরাগ;
    খালেদের মত সব অশান্ত ভেঙে কর একাকার।।
    ইসলামে নাই ছোট বড় আর আশরাফ আতরাফ
    নিষ্ঠুর হাতে এই ভেদ জ্ঞান কর মিসমার সাফ।
    চাকর সৃজিতে , চাকরি করিতে, ইসলাম আসে নাই পৃথিবীতে।
    মরিবে ক্ষুধায় কেহ নিরন্ন, কারো ঘরে রবে অঢেল অন্ন
    এ জুলুম সহেনি, ইসলাম, সহিবে না আজো আর।।
    
  • হায় হায় উঠিল মাতম আকাশ পবন ভুবন ভরি

    বাণী

    হায় হায় উঠিল মাতম আকাশ পবন ভুবন ভরি’।
    আখেরি নবী দ্বীনের রবি বিদায় নিল বিশ্ব-নিখিল আঁধার করি’।।
    অসীম তিমিরে পুণ্যের আলো
    আনিল যে চাঁদ, সে কোথায় লুকালো
    আকাশে ললাট হানি’ কাঁদিছে মরুভূমি
    শোকে গ্রহ-তারকা পড়িছে ঝরি’।।
    তৃণ নাহি খায় উট, মেষ নাহি মাঠে যায়;
    বিহগ-শাবক কাঁদে জননীরে ভুলি হায়!
    বন্ধুর বিরহ কি সহিল না আল্লার,
    তাই তারে ডাকিয়া নিল কাছে আপনার’;
    হায় কান্ডারি গেল চ’লে রাখিয়া পারের তরী।।
    

    বৈতালিক

  • হে নামাজী আমার ঘরে নামাজ পড় আজ

    বাণী

    হে নামাজী! আমার ঘরে নামাজ পড় আজ।
    দিলাম তোমার চরণ-তলে হৃদয় -জায়নামাজ।
    	আমি গুনাহগার বে-খবর,
    	নামাজ পড়ার ন্ই অবসর
    (তব) চরণ-ছোঁয়ায় এই পাপীরে কর সরফরাজ।।
    তোমার ওজুর পানি মোছ আমার পিরান দিয়ে
    আমার এ ঘর হোক মসজিদ তোমার পরশ নিয়ে।
    	যে শয়তানের ফন্দিতে ভাই,
    	খোদায় ডাকার সময় না পাই
    সেই শয়তান যাক দূরে, শুনে তকবীরের আওয়াজ।।
    

  • হে প্রিয় নবী রসূল আমার

    বাণী

    হে প্রিয় নবী রসূল আমার
    প’রেছি আভরণ নামেরি তোমার।।
    নয়নের কাজলে তব নাম
    ললাটের টীপে জ্বলে তব নাম
    গাঁথা মম কুন্তলে আহমদ
    বাঁধা মোর অঞ্চলে তব নাম
    দুলিছে গলে মোর তব নাম মণিহার।।
    তাবিজ অঙ্গুরী তব নাম
    বাজু ও পৈচী চুড়ি তব নাম
    ভয়ে ভয়ে পথে পথে ঘুরি যে
    পাছে কেউ করে চুরি তব নাম
    ঐ নাম রূপ মোর ঐ নাম আঁখি ধার।।
    বুকের বেদনা ঢাকা তব নাম
    ধ্যানে মোর জ্ঞানে মোর তুমি যে
    প্রেম-ভক্তি মাখা তব নাম
    প্রিয় নাম আহমদ জপি আমি অনিবার।।
    
  • হে মদিনাবাসী প্রেমিক ধর

    বাণী

    হে মদিনাবাসী প্রেমিক ধর হাত মম॥
    জ্বলওয়া দেখালে দিল হরিলে বন্ধু হলো বেগানা
    হেসে হেসে সংসার কহে দীওয়ানা এ দীওয়ানা॥
    বিরহের এ রাত একেলা কেঁদে হলো ভোর
    হৃদয়ে মোর শান্তি নাহি কাঁদে পরান মোর॥
    দুখের দোসর কেউ নাহি মোর নাই ব্যথী ব্যথার
    তোমায় ভুলে ভাসি অকূলে পার করো সরকার॥
    
  • হে মদিনার নাইয়া

    বাণী

    হে মদিনার নাইয়া!
    ভব-নদীর তুফান ভারি কর মোরে পার
    তোমার দয়ায় ত’রে গেল লাখো গুনাহ্‌গার॥
    পারের কড়ি নাই হে আমার হয়নি নামাজ রোজা
    কূলে এসে বসে আছি নিয়ে পাপের বোঝা
    (আমায়) ‘পার কর ইয়া রসুল’ বলে কাঁদি জারে জার॥
    তোমার নাম গেয়েছি শুধু কেঁদে সুব্‌হ শাম
    তরিবার মোর নাই ত’ পুঁজি বিনা তোমার নাম।
    হাজরো বার দরিয়াতে ডুবে যদি মরি
    ছাড়ব না মোর পারের আশা তোমার চরণ-তরী
    সবার শেষে পার যেন হয় এই খিদ্‌মতগার॥
    
  • হে মদিনার বুলবুলি গো

    বাণী

    হে মদিনার বুলবুলি গো গাইলে তুমি কোন গজল।
    মরুর বুকে উঠল ফুটে প্রেমের রঙিন গোলাপ দল।।
    দুনিয়ার দেশ-বিদেশ থেকে, গানের পাখি উঠল ডেকে
    মুয়াজ্জিনের আজান ধ্বনি উঠল ভেদি গগনতল।।
    সাহারার দগ্ধ বুকে রচ তুমি গুলিস্তান
    সেথা আস্‌হাব সব ভ্রমর হয়ে শাহাদতের গাইল গান।
    দোয়েল কোকিল দলে দলে আল্লা রসূল উঠল ব'লে
    আল্‌ কোরানের পাতার কোলে খোদার নামের বইল ঢল।।
    
  • হেরা হতে হেলে দুলে নূরানী তনু

    বাণী

    হেরা হতে হেলে দুলে নূরানী তনু ও কে আসে হায়,
    সারা দুনিয়ার হেরেমের পর্দা খুলে খুলে যায় —
    সে যে আমার কমলিওয়ালা — কমলিওয়ালা।।
    তার ভাবে বিভোল রাঙা পায়ের তলে
    পর্বত জঙ্গম টলমল টলে,
    খোরমা খেজুর বাদাম জাফরানি ফুল ঝ’রে ঝ’রে যায় —
    সে যে আমার কমলিওয়ালা — কমলিওয়ালা।।
    আসমানে মেঘ চলে ছায়া দিতে,
    পাহাড়ের আঁসু গলে ঝরনার পানিতে,
    বিজলি চায় মালা হতে,
    পূর্ণিমার চাঁদ তার মুকুট হতে চায় —
    সে যে আমার কমলিওয়ালা — কমলিওয়ালা।।
    
  • হেরেমের বন্দিনী কাঁদিয়া ডাকে

    বাণী

    হেরেমের বন্দিনী কাঁদিয়া ডাকে তুমি শুনিতে কি পাও?
    আখেরি নবী প্রিয় আল-আরবি বারেক ফিরে চাও।।
    পিঁজরার পাখি সম অন্ধকারায়
    বন্ধ থাকি' এ জীবন কেটে' যায়;
    কাঁদে প্রাণ ছুটে যেতে তব মদিনায়
    	চরণের এই জিঞ্জির খুলে' দাও।।
    ফতেমার মেয়েদের হেরি' আঁখি-নীর
    বেহেশতে কেমনে আছ তুমি থির!
    যেতে নারি মসজিদে শুনিয়া আজান,
    বাহিরে ওয়াজ হয়, ঘরে কাঁদে প্রাণ
    ঝুটা এই বোরখার হোক অবসান —
    	আঁধারে হেরেমে আশা-আলোক দেখাও।।