কাহার্‌বা

  • ঈদজ্জোহার চাঁদ হাসে ঐ

    বাণী

    ঈদজ্জোহার চাঁদ হাসে ঐ এলো আবার দুস্‌রা ঈদ
    কোর্‌বানি দে কোর্‌বানি দে শোন্‌ খোদার ফর্‌মান তাকিদ।।
    এমনি দিনে কোর্‌বানি দেন পুত্রে হজরত ইব্‌রাহীম,
    তেমনি তোরা খোদার রাহে আয় রে হবি কে শহীদ্।।
    মনের মাঝে পশু যে তোর আজকে তা’রে কর্ জবেহ,
    পুল্‌সেরাতের পুল হ’তে পার নিয়ে রাখ্ আগাম রসিদ্।।
    গলায় গলায় মিল্ রে সবে ভুলে যা ঘরোয়া বিবাদ,
    মিলনের ঈদগাহ্‌ গড়ে তোল্‌ প্রাণ দিয়ে তার তোল্‌ বুনিয়াদ।।
    মিলনের আর্‌ফাত ময়দান হোক আজি গ্রামে গ্রামে,
    হজের অধিক পাবি সওয়াব এক হ’লে সব মুসলিমে।
    বাজবে আবার নূতন ক’রে দ্বীনি ডঙ্কা, হয় উমীদ্।।
    ইসমাইলের মতন যদি কোর্‌বানি পারিস হতে
    দেখব আবার তোদের মাঝে দিশারি মুসা, খালিদ।।
    
  • ঈদের খুশির তুফানে আজ ভাসলো

    বাণী

    ঈদের খুশির তুফানে আজ ভাসলো দো জাহান
    এই তুফানে ডুবু ডুবু জমিন ও আসমান।।
    ঈদের চাঁদের পানসি ছেড়ে বেহেশত হতে
    কে পাঠালো এত খুশি দুখের জগতে
    শোন ঈদগাহ হতে ভেসে আসে তাহারি আজান।।
    

    রেকর্ড-নাটিকা:‘ঈদুল ফেতর’

  • উচ্ছে নহে ঝিঙে নহে নহে সে পটল

    বাণী

    		উচ্ছে নহে, ঝিঙে নহে, নহে সে পটল ব্রজের আলু
    		পিয়া হতে জনম তাই পি’য়াজ সুডোল ব্রজের আলু।।
    		রসঘন রসুনের সে গন্ধতুত দাদা, ও দাদা
    		রস কিছু কম হলে হতো আম আদা, ও দাদা
    সে		আরো খানিক ডাগর হলে ঐ হতো ওল, ব্রজের আলু।।
    		পরম বৈষ্ণব সে যে ফল-দল মাঝে — ও দাদা
    		হের তার শিরে চৈতন-চুট্‌কী বিরাজে — ও দাদা
    আবার	মাথাটি বাবাজীর মতো চাঁচাছোলা গোল
    তার		মাথাটি বাবাজীর মতো চাঁচা ছোলা গোল, ব্রজের আলু।।
    কাঁদে		ছল ক’রে সব বিরহিণী ইহাকে থ্যাত্‌লাতে — ও দাদা
    		চক্ষু বুজে পন্ডিতে খান, বলেন ‘আলুভাতে’ — ও দাদা
    ওরে		পাতে তুলেছি তুলব জাতে ব’দলে এবার ভোল, ব্রজের আলু।।
    
  • উঠুক তুফান পাপ-দরিয়ায়

    বাণী

    উঠুক তুফান পাপ-দরিয়ায় ওরে আমি কি তায় ভয় করি।
    			ও ভাই আমি কি তায় ভয় করি।
    পাক্কা ঈমান তক্তা দিয়ে গড়া যে আমার তরী।
    			ও ভাই গড়া যে আমার তরী।।
    ‌‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু'র পাল তুলে,
    ঘোর তুফানকে জয় ক'রে ভাই যাবই কূলে,
    মোহাম্মদ মোস্তফা নামের (ও ভাই) গুণের রশি ধরি'।।
    খোদার রাহে সঁপে দেওয়া ডুববে না মোর তরী,
    সওদা ক'রে ভিড়বে তীরে সওয়াব-মাণিক ভরি'।
    দাঁড় এ তরীর নামাজ, রোজা, হজ্ ও জাকাত,
    উঠুক না মেঘ, আসুক বিপদ — যত বজ্রপাত,
    আমি যাব বেহেশত্-বন্দরেতে রে এই সে কিশতিতে চড়ি'।।
    
  • উঠেছে কি চাঁদ সাঁঝ গগনে

    বাণী

    উঠেছে কি চাঁদ সাঁঝ গগনে
    আজিকে আমার বিদায় লগনে।।
    জানালা পাশে চাঁপার শাখে
    ‘বউ কথা কও’ পাখি কি ডাকে?
    ফুটেছে কি ফুল মালতী বকুল —
    আমার সাধের কুসুম বনে সাঁঝ গগনে।।
    তুলসী তলায় জ্বলেছে কি দীপ
    পরেছে আকাশ তারকার টিপ?
    হারিয়ে যাওয়া বঁধূ অবেলায়
    এলো কি ফিরে দেখিতে আমায়,
    ঝুরিছে বাঁশি পিলু বারোয়াঁয় —
    কেন গো আমার যাবার ক্ষণে।।
    
  • উতল হ'ল শান্ত আকাশ তোমার কলগীতে

    বাণী

    উতল হ'ল শান্ত আকাশ তোমার কলগীতে
    বাদল ধারা ঝরে বুঝি তাই আজ নিশীথে।।
    সুর যে তোমার নেশার মত, মনকে দোলায় অবিরত,
    ফুলকে শেখায় ফুটতে গো, পাখিকে শিস দিতে।।
    কেন তুমি গানের ছলে বঁধু, বেড়াও কেঁদে?
    তীরের চেয়েও সুর যে তোমার প্রাণে অধিক বেঁধে।
    তোমার সুরে কোন সে ব্যথা, দিলো এতো বিহ্বলতা
    আমি জানি (ওগো) সে বারতা তাই কাদিঁ নিভৃতে।।
    
  • উপল নুড়ির কাঁকন চুড়ি বাজে

    বাণী

    উপল নুড়ির কাঁকন চুড়ি বাজে
    	বাজে ঘুমতি নদীর জলে।
    বুনো হাঁসের পাখার মত মন যে ভেসে চলে
    	সেই ঘুমতি নদীর জলে।।
    মেঘ এসেছে আকাশ ভ'রে —
    যেন শ্যামল ধেনু চরে
    নাগিনীর সম বিজলি-ফনা তুলে
    	নাচে,নাচে নাচে রে।
    	মেঘ-ঘন গগন তলে।।
    পাহাড়িয়া অজগর ছুটে আসে ঝর্‌ ঝর্‌ বেনো-জল্‌
    দিয়ে করতালি প'রে পিয়াল পাতার মাথালি
    ছিটায় জল,গেঁয়ো কিশোরীর দল।
    রিনিক,ঝিনিক,বাজে চাবি আঁচলে
    কাল নাগিনীর মত পিঠে বেনী দোলে
    তীর-ধনুক হাতে বন-শিকারির সাথে
    	মন ছুটে যায় বনতলে।।
    
  • এ কুল ভাঙ্গে ও কুল গড়ে

    বাণী

    এ-কূল ভাঙে ও-কূল গড়ে এই তো নদীর খেলা।
    সকাল বেলা আমির, রে ভাই (ও ভাই) ফকির, সন্ধ্যাবেলা॥
    সেই নদীর ধারে কোন্ ভরসায়
    বাঁধলি বাসা, ওরে বেভুল, বাঁধলি বাসা, কিসের আশায়?
    যখন ধরলো ভাঙন পেলি নে তুই পারে যাবার ভেলা।
    এই তো বিধির খেলা রে ভাই এই তো বিধির খেলা॥
    এই দেহ ভেঙে হয় রে মাটি, মাটিতে হয় দেহ
    যে কুমোর গড়ে সেই দেহ, তার খোঁজ নিল না কেহ (রে ভাই)।
    রাতে রাজা সাজে নাচমহলে
    দিনে ভিক্ষা মেগে বটের তলে
    শেষে শ্মশান ঘাটে গিয়ে দেখে সবাই মাটির ঢেলা
    এই তো বিধির খেলা রে ভাই ভব নদীর খেলা॥
    

  • এ কোন মধুর শরাব দিলে

    বাণী

    এ কোন্‌ মধুর শরাব দিলে আল আরাবি সাকি,
    নেশায় হলাম দিওয়ানা যে রঙিন হল আঁখি।।
    	তৌহিদের শিরাজি নিয়ে
    	ডাকলে সবায় যারে পিয়ে,
    নিখিল জগৎ ছুটে এলো রইল না কেউ বাকি।।
    বসলো তোমার মহ্‌ফিল দূর মক্কা মদিনাতে,
    আল্‌-কোরানের গাইলে গজল শবে কদর রাতে।
    	নরনারী বাদশা ফকির
    	তোমার রূপে হয়ে অধীর
    যা ছিল নজ্‌রানা দিল রাঙা পায়ে রাখি’।
    
  • এ জনমে মোদের মিলন হবে না

    বাণী

    এ জনমে মোদের মিলন হবে না আর, জানি জানি।
    মাঝে সাগর, এপার ওপার করি মোরা কানাকানি।।
    	দুজনে দুকূলে থাকি’
    	কাঁদি মোরা চখা-চখি,
    বিরহের রাত পোহায় না আর বুকে শুকায় বুকের বাণী।।
    	মোদের পূজা আরতি হায়
    	চোখের জলে, গহন ব্যথায়,
    মোদের বুকে বাজায় বীণা বেদনারি বীণাপাণি।।
    	হেথায় মিলন-রাতের মালা
    	ম্লান হয়ে যায় প্রভাত বেলা,
    সকালে যার তরে কাঁদি, বিকালে তায় হেলাফেলা।
    	মোদের এ প্রেম-ফুল না শুকায়
    	নিঠুর হাতে কঠোর ছোঁওয়ায়,
    ব্যথার মাঝে চির-অমর মোদের মিলন-কুসুমদানি।।
    
  • এ দেবদাসীর পূজা লহ হে ঠাকুর

    বাণী

    এ দেবদাসীর পূজা লহ হে ঠাকুর।
    দয়া কর, কথা কও, হ’য়ো না নিঠুর।।
    লহ মান অভিমান, দেহ প্রাণ মন
    মম প্রেম-ধূপ নাও রূপচন্দন,
    এই লহ আভরণ, চুড়ি-কঙ্কন –
    চোখের দৃষ্টি নাও কণ্ঠের সুর।।
    আজ, শেষ ক’রে আপনারে দিব তব পায়,
    চাও চাও মোর কাছে যাহা সাধ যায়।
    কহিবে না কথা কি গো তুমি কিছুতেই?
    আরতির থালা তবে ফেলে দিনু এই,
    নাচিব না, বাজুক না মৃদঙ্গ তাল –
    খুলিয়া রাখিনু এই পায়ের নূপুর।।
    
  • এ নহে বিলাস বন্ধু ফুটেছি জলে কমল

    বাণী

    এ নহে বিলাস বন্ধু ফুটেছি জলে কমল
    এ যে ব্যথা রাঙা হৃদয় আঁখি জলে টলমল।।
    কমল মৃণাল দেহ ভরেছে কন্টক ঘায়
    শরণ লয়েছি গো তাই শীতল দীঘির জল।।
    ডুবেছি আজ কালো জলে কত যে জ্বালা স'য়ে
    শত ব্যথা ক্ষত লয়ে হইয়াছি শতদল।।
    কবি রে কোন ক্ষত মুখে ফোটে যে তোর গীত সুর
    সে ক্ষত দেখিল না কেউ দেখিল তোরে কেবল
    সে গীতি দেখিল না কেউ শুনিল গীতি কেবল।।
    
  • এই সুন্দর ফুল সুন্দর ফল মিঠা নদীর পানি

    বাণী

    এই সুন্দর ফুল সুন্দর ফল মিঠা নদীর পানি
    		খোদা তোমার মেহেরবানী।
    শস্য-শ্যামল ফসল-ভরা মাঠের ডালিখানি
    		খোদা তোমার মেহেরবানী।।
    	তুমি কতই দিলে রতন
    	ভাই বেরাদর পুত্র স্বজন
    ক্ষুধা পেলেই অন্ন জোগাও মানি চাই না মানি।।
    খোদা তোমার হুকুম তরক করি আমি প্রতি পায়
    তবু আলো দিয়ে বাতাস দিয়ে বাঁচাও এ বান্দায়।
    	শ্রেষ্ঠ নবী দিলে মোরে
    	তরিয়ে নিতে রোজ-হাশরে
    পথ না ভুলি তাইতো দিলে পাক কোরানের বাণী।।
    

  • এত জল ও কাজল চোখে

    বাণী

    এত জল ও কাজল চোখে, পাষানী আনলে বল কে।
    টলমল জল-মোতির মালা দুলিছে ঝালর-পলকে ।।
    দিল কি পূব হাওয়াতে দোল, বুকে কি বিঁধিল কেয়া?
    কাঁদিয়া কুটিলে গগন এলায়ে ঝামর-অলকে।।
    চলিতে পৈঁচি কি হাতের বাঁধিল বৈচি-কাঁটাতে?
    ছাড়াতে কাঁচুলির কাঁটা বিঁধিল হিয়ার ফলকে।।
    [যে দিনে মোর দেওয়া-মালা ছিঁড়িলে আনমনে সখি,
    জড়াল জুই-কুসুমি-হার বেণীতে সেদিন ওলো কে।।
    যে-পথে নীর ভরণে যাও বসে রই সে পথ-পাশে
    দেখি, নিত কার পানে চাহি কলসীর সলিল ছলকে।।]
    মুকুলী-মন সেধে সেধে কেবলি ফিরিনু কেঁদে,
    সরসীর ঢেউ পালায় ছুটি' না ছুঁতেই নলিন-নোলকে ।।
    বুকে তোর সাত সাগরের জল, পিপাসা মিটল না কবি
    ফটিক জল ! জল খুঁজিস যেথায় কেবলি তড়িৎ ঝলকে।। 
    
  • এলে তুমি কে কে ওগো

    বাণী

    পুরুষ	:	এলে তুমি কে, কে ওগো
    		তরুণা অরুণা করুণা সল চোখে।
    স্ত্রী	:	আমি তব মনের বনের পথে
    		ঝিরি ঝিরি গিরি-নির্ঝরিণী
    		আমি যৌবন-উন্মনা হরিণী মানসলোকে।।
    পুরুষ	:	ভেসে যাওয়া মেঘের সজল ছায়া
    		ক্ষণিক মায়া তুমি প্রিয়া
    		স্বপনে আসি' বাজায়ে বাঁশি স্বপনে যাও মিশাইয়া।
    স্ত্রী	:	বাহুর বাঁধনে দিই না ধরা —
    		আমি স্বপন-স্বয়ম্বরা
    		সঙ্গীতে জাগাই ইঙ্গিতে ফোটাই
    		তোমার প্রেমের যুঁই-কোরকে।
    পুরুষ	:	আধেক প্রকাশ 
    স্ত্রী	:	আধেক গোপন
    পুরুষ	:	আধো জাগরণ 
    স্ত্রী	:	আধেক স্বপন
    উভয়ে	:	খেলিব খেলা ছায়া-আলোকে।।
    
  • এলো রমজানেরি চাঁদ এবার দুনিয়াদারি ভোল

    বাণী

    এলো রমজানেরি চাঁদ এবার দুনিয়াদারি ভোল
    সারা বরষ ছিলি গাফেল এবার আঁখি খোল।।
    	এই একমাস রোজা রেখে
    	পরহেজ থাক গুনাহ থেকে
    কিয়ামতের নিয়ামত তোর ঝুলি ভরে তোল।।
    বন্দী রহে এই মাসে শয়তান মালাউন
    (তার) এই মাসে যা করবি সওয়াব দর্জা হাজার গুণ।
    	ভোগ বিলাসে মাখলি যে পাঁক
    	রমজানে তা হবে রে সাফ
    এফতারে তোর কর রে সামান আল্লা রসুল বোল।।
    
  • এলো আবার ঈদ ফিরে

    বাণী

    	এলো আবার ঈদ ফিরে এলো আবার ঈদ, চলো ঈদগাহে।
    	যাহার আশায় চোখে মোদের ছিল না রে নিদ, চলো ঈদ্গাহে।।
    	শিয়া সুন্নী, লা-মজহাবী একই জামাতে
    	এই ঈদ মোবারকে মিলিবে এক সাথে,
    	ভাই পাবে ভাইকে বুকে, হাত মিলাবে হাতে;
    আজ	এক আকাশের নীচে মোদের একই সে মসজিদ, চলো ঈদগাহে।।
    	ঈদ এনেছে দুনিয়াতে শিরণী বেহেশ্‌তী,
    	দুশ্‌মনে আজ গলায় ধ'রে পাতাব ভাই দোস্তী,
    	জাকাত দেব ভোগ-বিলাস আজ গোস্‌সা ও বদ্‌মস্তি;
    	প্রাণের তশ্‌তরীতে ভ'রে বিলাব তৌহীদ — চলো ঈদ্গাহে।।
    	আজিকার এই ঈদের খুশি বিলাব সকলে,
    	আজের মত সবার সাথে মিল্‌ব গলে গলে,
    	আজের মত জীবন-পথে চলব দলে দলে
    	প্রীতি দিয়ে বিশ্ব-নিখিল ক'রব রে মুরীদ্ — চলো ঈদগাহে।।
    
  • এলো এলো রে ঐ সুদূর বন্ধু এলো

    বাণী

    এলো এলো রে ঐ সুদূর বন্ধু এলো।
    এলো পথ চাওয়া এলো হারিয়ে পাওয়া
    মনের আঁধার দূরে গেল, ঐ বন্ধু এলো।।
    এলো চঞ্চল বন্যার ঢল মন্থর স্রোত-নীড়ে,
    এলো শ্যামল মেঘ-মায়া তৃষিত গগন ঘিরে;
    তার পলাতকা মৃগে বন ফিরে পেল।।
    এলো পবনে বিহ্‌বল চঞ্চলতা
    যেন শান্ত ভবনে এলো সারা ভুবনের কল-কথা।
    অলি গুঞ্জরি’ কয় জাগো বনবীথি;
    ডাকে দখিনা মলয় — এলো এলো অতিথি;
    বাজে তোরণ দ্বারে বাঁশরি গীতি,
    দুখ নিশি পোহাল, আঁখি মেল।।
    

    নাটিকা: ‌‘বাসন্তিকা’

  • এলো এলো রে বৈশাখী ঝড় এলো এলো রে

    বাণী

    এলো এলো রে বৈশাখী ঝড় এলো এলো রে,
    ঐ বৈশাখী ঝড় এলো এলো মহীয়ান সুন্দর।
    পাংশু মলিন ভীত কাঁপে অম্বর চরাচর থরথর।।
    ঘনবন–কুন্তলা বসুমতী সভয়ে করে প্রণতি,
    সভয়ে নত চরণে ভীতা বসুমতী।
    সাগর তরঙ্গ মাঝে তারি মঞ্জীর যেন বাজে বাজে রে
    পায়ে গিরি–নির্ঝর–ঝরঝর ঝরঝর।।
    ধূলি–গৈরিক নিশান দোলে ঈশান গগন চুম্বী,
    ডম্বরু ঝল্লরী ঝাঁঝর ঝনঝন বাজে
    এলো ছন্দ বন্ধন–হারা এলো রে
    এলো মরু–সঞ্চর বিজয়ী বীরবর।।
    
  • এলো এলো শবেরাত তোরা জ্বাল্ রে বাতি

    বাণী

    এলো এলো শবেরাত তোরা জ্বাল্ রে বাতি।
    হোক রওশন মুসলিম-জাহানের অন্ধকার রাতি।।
    আজ ফিরদৌসের হুর-পরীরা আলোতে রাঙে
    চাঁদ সেতারার প্রদীপ ভাসায় আস্‌মানি গাঙে,
    ফেরেশ্‌তা সব হয়েছে আজ মোদের সাথি।।
    আজ জ্বাল্‌রে বাতি প্রিয়জনের আঁধার গোরে
    আজ বরষ পরে লুকিয়ে তারা এসেছে ঘরে,
    রাখ্‌ তাদের তরে অশ্রু-ভেজা হৃদয় পাতি।।