কাহার্‌বা

  • হে মদিনার নাইয়া

    বাণী

    হে মদিনার নাইয়া!
    ভব-নদীর তুফান ভারি কর মোরে পার
    তোমার দয়ায় ত’রে গেল লাখো গুনাহ্‌গার॥
    পারের কড়ি নাই হে আমার হয়নি নামাজ রোজা
    কূলে এসে বসে আছি নিয়ে পাপের বোঝা
    (আমায়) ‘পার কর ইয়া রসুল’ বলে কাঁদি জারে জার॥
    তোমার নাম গেয়েছি শুধু কেঁদে সুব্‌হ শাম
    তরিবার মোর নাই ত’ পুঁজি বিনা তোমার নাম।
    হাজরো বার দরিয়াতে ডুবে যদি মরি
    ছাড়ব না মোর পারের আশা তোমার চরণ-তরী
    সবার শেষে পার যেন হয় এই খিদ্‌মতগার॥
    
  • হে মদিনার বুলবুলি গো

    বাণী

    হে মদিনার বুলবুলি গো গাইলে তুমি কোন গজল।
    মরুর বুকে উঠল ফুটে প্রেমের রঙিন গোলাপ দল।।
    দুনিয়ার দেশ-বিদেশ থেকে, গানের পাখি উঠল ডেকে
    মুয়াজ্জিনের আজান ধ্বনি উঠল ভেদি গগনতল।।
    সাহারার দগ্ধ বুকে রচ তুমি গুলিস্তান
    সেথা আস্‌হাব সব ভ্রমর হয়ে শাহাদতের গাইল গান।
    দোয়েল কোকিল দলে দলে আল্লা রসূল উঠল ব'লে
    আল্‌ কোরানের পাতার কোলে খোদার নামের বইল ঢল।।
    
  • হে মোর স্বামী অন্তর্যামী

    বাণী

    হে মোর স্বামী, অন্তর্যামী, লহ সকলি আমার।
    লহ প্রীতি-প্রেম-পূজা লহ পায়ে গলার হার।।
    	হে প্রিয়তম, সকলি লহ;
    	মান-অভিমান ব্যথা-বিরহ।
    দুঃখের দাহ, সুখের মোহ লহ হে অশ্রু-ধার।।
    	যাহা কিছু আপন, দিতে যা বাকি
    	যাহা কিছু গোপন, লুকায়ে রাখি
    যাহা কিছু প্রিয় অঞ্চলে ঢাকি; লহ হে বঁধূ এবার।।
    	তোমায় চাওয়ার পাওয়ার আশা,
    	তোমায় না-পাওয়ার ব্যথা-নিরাশা,
    তোমারে দিলাম মোর ভালোবাসা বিফলতা হাহাকার।।
    
  • হেড মাস্টারের ছড়ি সেকেন্ড মাস্টারের দাড়ি

    বাণী

    হেড মাস্টারের ছড়ি, সেকেন্ড মাস্টারের দাড়ি
    থার্ড মাস্টারের টেড়ি, কারে দেখি কারে ছাড়ি।
    হেড-পণ্ডিতের টিকির সাথে ওদের যেন আড়ি।
    	দাঁড়াইয়া ঐ হাই বেঞ্চে
    	হাসি রে মুখ ভেংচে ভেংচে,
    খোঁড়া সেকেন্ড পণ্ডিত যায় লেংচে হুঁকো হাতে বাড়ি
    তার মুখ নয় তেলো হাড়ি, মোর হেসে ছিড়ে যায় নাড়ি।
    

    নাটিকাঃ ‘পুতুলের বিয়ে’

  • হেমন্তিকা এসো এসো হিমেল শীতল বন-তলে

    বাণী

    হেমন্তিকা এসো এসো হিমেল শীতল বন-তলে
    শুভ্র পূজারিণী বেশে কুন্দ-করবী-মালা গলে।।
    	প্রভাত শিশির নীরে নাহি'
    	এসো বলাকার তরণী বাহি'
    সারস মরাল সাথে গাহি' চরণ রাখি' শতদলে।।
    ভরা নদীর কূলে কূলে চাহিছে সচকিতা চখি —
    মানস-সরোবর হ'তে-অলক -লক্ষ্মী এলো কি?
    	আমন ধানের ক্ষেতে জাগে
    	হিল্লোল তব অনুরাগে,
    তব চরণের রঙ লাগে কুমুদে রাঙা কমলে।।
    
  • হেরেমের বন্দিনী কাঁদিয়া ডাকে

    বাণী

    হেরেমের বন্দিনী কাঁদিয়া ডাকে তুমি শুনিতে কি পাও?
    আখেরি নবী প্রিয় আল-আরবি বারেক ফিরে চাও।।
    পিঁজরার পাখি সম অন্ধকারায়
    বন্ধ থাকি' এ জীবন কেটে' যায়;
    কাঁদে প্রাণ ছুটে যেতে তব মদিনায়
    	চরণের এই জিঞ্জির খুলে' দাও।।
    ফতেমার মেয়েদের হেরি' আঁখি-নীর
    বেহেশতে কেমনে আছ তুমি থির!
    যেতে নারি মসজিদে শুনিয়া আজান,
    বাহিরে ওয়াজ হয়, ঘরে কাঁদে প্রাণ
    ঝুটা এই বোরখার হোক অবসান —
    	আঁধারে হেরেমে আশা-আলোক দেখাও।।
    

  • হেলে দুলে চলে বন-মালা গলে

    বাণী

    হেলে দুলে চলে বন-মালা গলে গোঠ-বিহারী বনে বনমালী সাজে।
    বঙ্কিম শিখী পাখা শোভিত অলক চন্দন তিলক ললাটে রাজে।।
    	পথের ধুলি হরি চরণ পরশে
    	হল সুরভিত হরি-চন্দন হরষে,
    নিখিল-ভক্ত-প্রাণ চরণে নূপুর হয়ে রুমু ঝুমু বাজে।।
    	তৃণ নাহি পরশে উচাটন ধেনু সব
    	বংশী-বট-তলে শোনে শ্যাম বেণুরব,
    অপরূপ অভিনব প্রেম অনুভব, জাগে ব্রজ-গোপীকার প্রাণের মাঝে।।